গোবিন্দগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জমি বে-দখল ও চাঁদাবাজীর অভিযোগ

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি :: গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা মুক্তার আলীর পরিবারের নিকট ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী ও জমি বে-দখলসহ প্রাণনাশের হুমকি প্রদানের কারনে থানায় অভিযোগ করেছে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী মিলন বেগম।

অভিযোগে জানাগেছে, উপজেলার পৌর শহরের বুজরুক বোয়ালিয়া (হীরকপাড়া) গ্রামের মৃত্যু মুক্তিযোদ্ধা মুক্তার আলীর বিধবা স্ত্রী মিলন বেগম ও তার ২ কণ্যা মেরিনা আক্তার লাইলী, মোর্শেদা আক্তার গোলাপ এবং জামাতা ফারুক হোসেনের কবলা খরিদা জমিতে বসতবাড়ী করার নিমিত্তে ইটের বাউন্ডারী নির্মান করে ভোগদখল করিয়া আসছে। মিলন বেগম ও কন্যা মোর্শেদা আক্তার গোলাপ এবং জামাতা ফারুক হোসেনের বাড়ী টাঈাইলে থাকার সুযোগে একই গ্রামের প্রতিবেশি আজিজার রহমানের ছেলে আশরাফ আলী উক্ত জমি বে-দখল করার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন সময় তাদের নিকট চাঁদা দাবী করে আসত। চাঁদা না দিলে তাদের জমি বে-দখল ও তাদেরকে মারপিট করে লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে আসত বলে অভিযোগে জানা যায়।

এরই প্রেক্ষিতে গত ৯ জুন বিকাল ৩ টায় আশরাফ আলী গংরা উক্ত জমির ইটের বাউন্ডারী প্রাচীর ভেঙ্গে বাসার ভিতরে ঢুকে পূর্বের ন্যায় ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী ও অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে চলে যায়। চাঁদা না দিলে জমি বে-দখলসহ হত্যা করে লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এতে পরিবারটি প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধনসহ নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে। এ ছাড়াও এ বিষয়ে আশরাফ আলী গংরা কয়েকবার তাদের উপর হামলা ও ভাংচুর করার অভিযোগ থানায় দিয়েছিল বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা মুক্তার আলীর স্ত্রী মিলন বেগম বাদী হয়ে প্রতিকার চেয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এ কে এম মেহেদী হাসান অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে ব্যাবস্থ্যা নেওয়ার কথা জানান।